Bangal Press
ঢাকাThursday , 23 November 2023
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. ক্যাম্পাস
  6. খেলাধুলা
  7. চাকরির খবর
  8. জাতীয়
  9. তথ্যপ্রযুক্তি
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. মতামত
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা জগৎ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নালিতাবাড়ীতে ভুয়া জমিদাতা বানিয়ে গোপনে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ

ডেস্ক রিপোর্ট
November 23, 2023 2:36 pm
Link Copied!

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে ভুয়া জমিদাতাকে দাতা সদস্য বানিয়ে এলাকাবাসীর অগোচরে অপরাপর সদস্য বানিয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পকেট ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ ওঠেছে সুলতান মাসুদ নামে এক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়নের বাতকুচি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে এমন অভিযোগ তুলেছেন প্রকৃত জমিদাতা ও এলাকাবাসী। সম্প্রতি এর প্রতিবাদে এলাকাবাসী স্কুল প্রাঙ্গনে জড়ো হন। তারা প্রকৃত জমিদাতাকে দাতা সদস্য বানিয়ে প্রকাশ্যে এলাকাবাসীর সমন্বয়ে কমিটি গঠনের দাবী জানান।
 
সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত ১৯৯৮ সালে স্থানীয়দের সহযোগিতায় বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে চেল্লাখালী নদীর তীরে যাত্রা শুরু করে বাতকুচি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এসময় রেজিস্টি্র বিদ্যালয় হিসেবে অন্তঃর্ভূক্ত হয়ে জরাজীর্ণ টিনসেড শ্রেণিকক্ষে চলে পাঠদান। এরপর সরকার বিদ্যালয়টিকে জাতীয়করণের আওতায় আনলে দ্বিতল পাকা ভবন বরাদ্দ হয়।
নুর হোসেন নামে যে ব্যক্তি এতোদিন বিদ্যালয়ের জমিদাতা বলে চলে আসছিল তার বৈধ কাগজপত্র না থাকায়  ভবন নির্মাণের আগে তৈরি হয় জটিলতা। এমতাবস্থায় স্থানীয় বাসিন্দা বর্তমানে মালয়েশিয়া প্রবাসী সুরুজ্জামান নামে স্থানীয় বাসিন্দা সাড়ে ৩৩ শতাংশ ওই জমি প্রকৃত মালিক আব্দুল হাই আজাদের কাছ থেকে কিনে বিদ্যালয়ের নামে দান করেন। বিদ্যালয় ভবন নির্মাণকাজ শেষ হলে সম্প্রতি বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুলতান মাসুদ। স্থানীয় লোকজন ও অভিভাবকদের অগোচরে পছন্দমতো ব্যক্তিদের দিয়ে পকেট কমিটি তৈরি করেন তিনি। জমিদাতা প্রবাসী সুরুজ্জামানের পরিবর্তে দাতা সদস্য বানানো হয় নূর হোসেনকে।
বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়লে এলাকাবাসী ক্ষোভে ফেটে পড়েন। ওই প্রধান শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তিনি এলাকায় শিক্ষিত ও ভালো লোক নেই মন্তব্য করেন বলেও অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। তারা জানান, প্রকৃত জমিদাতা মালয়েশিয়া প্রবাসী সুরুজ্জামানকে দাতা সদস্য করে এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের সমন্বয়ে প্রকাশ্যে একটি গ্রহণযোগ্য কমিটি গঠন করতে হবে।
স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা আছমত আলী জানান, কমিটি যে করেছে তা আমরা এলাকাবাসী কেউ জানি না বা শোনিও নাই। আমার দাবী হলো, এলাকার সবাইকে ডেকে কমিটি করা হোক।
অভিভাবক রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার ছেলে এই স্কুলে পড়াশোনা করে। অথচ এই স্কুলে যে কমিটি করা হয়েছে তা আমি জানি না। জমিদাতা মলয়েশিয়া প্রবাসী সুরুজ্জামানের ছোট ভাই শেখ ফরিদ জানান, আমার ভাই প্রায় ৯ লাখ টাকা খরচ করে এই স্কুলের জন্য জমি কিনে দিয়েছেন। কিন্তু দাতা সদস্য হিসেবে স্কুলের বোর্ডে অন্যজনের নাম লেখা। আমি চাই প্রকৃত জমিদাতা যেন দাতা সদস্য হয়।
স্থানীয় বাসিন্দা তহর আলী জানান, শিক্ষকরা সময়মতো স্কুলে আসেন না, সময় হওয়ার আগেই চলে যান। বলতে গেলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বলেন, এলাকায় কোন শিক্ষিত মানুষ নেই।
অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক হাতেম আলী জানান, আমি দীর্ঘ সময় শিক্ষকতা করে অবসরে আছি। অথচ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বলেন এলাকায় কোন শিক্ষিত মানুষ নেই। সব গারো। আমরা এ শিক্ষকের বদলি চাই।
এ সকল বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুলতান মাসুদ জানান, কমিটি খসড়া করা হয়েছিল তবে অনুমোদন করানো হয়নি। তিনি আরও জানান, আমাদের কাছে একজনের দলিল ছিল। পরবর্তী সময়ে আরেকজন দলিল দেখাচ্ছেন। যেহেতু এখন জমিদাতা দুইজন দাড়িয়েছেন কাজেই বিষয়টি শিক্ষা অফিস থেকেই সমাধান করা হবে।
এদিকে, এখনো কোন কমিটি জমা পড়েনি জানিয়ে ওই ক্লাস্টারের দায়িত্বে থাকা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সারোয়ার জাহান জানিয়েছেন, উভয়পক্ষের দলিলপত্র যাচাই—বাছাই করে প্রকৃত জমিদাতাকে দাতা সদস্য করা হবে।
এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইলিশায় রিছিল জানান, সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। 



শাকিল/সাএ

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।