Bangal Press
ঢাকাMonday , 5 February 2024
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. ক্যাম্পাস
  6. খেলাধুলা
  7. চাকরির খবর
  8. জাতীয়
  9. তথ্যপ্রযুক্তি
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. মতামত
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা জগৎ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেরানীগঞ্জে দখলকৃত বাড়ি ফিরে পেল ভুক্তভোগী পরিবার

Link Copied!

ঢাকার কেরানীগঞ্জে আলোচিত আব্বা বাহিনীর হাতে দখল হওয়ার ১০ মাস পরে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে নিজবাড়ী ফিরে পেলেন গৃহবধূ মরিয়ম বেগম। সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত সরজিৎ কুমারের নেতৃত্বে ইকুরিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদের একটি দল বাড়িটি দখলমুক্ত করে ভুক্তভোগী মরিয়ম বেগমের কাছে বুঝিয়ে দেন।
জানা গেছে, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের চর মিরেরবাগ এলাকায় গত ১১ এপ্রিল নিজের বাড়ির সামনে মাদক বিক্রি ও সেবনে বাধা দেয়ায় আব্বা বাহিনীর নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে শিশু সন্তানদের নিয়ে তিনদিন গৃহবন্দী থাকার পর ৯৯৯ ফোনের মাধ্যমে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে বাড়ি ছেড়েছিলেন গৃহবধূ মরিয়ম বেগম।
এরপর পরপরই বাড়িটি দখল করে নেয় আব্বা বাহিনীর সদস্যরা। বাড়িটি দখলমুক্ত করে নিজ বাড়িতে বসবাসের জন্য বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেরিয়েছেন গৃহবধূ মরিয়ম বেগম ও  তার স্বামী থানকাপড় ব্যবসায়ী আবির হোসেন বাহাদুর। কোথাও তারা বিচার পাননি,থানা পুলিশ তার মামলা পর্যন্ত নেয়নি।আলোচিত রাসেল হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা আব্বা বাহিনীর প্রধান আফতাব উদ্দিন রাব্বিসহ গত ১৭ই জানুয়ারি বাহিনীর সদস্যরা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর মরিয়ম বেগমের বাড়ি দখলের ঘটনাটি আলোচনায় আসে। বিষয়টি জানতে পেরে প্রায় ১০ মাস পরে সেই বাড়িটি আবার দখল মুক্ত করে ভুক্তভোগী পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিলেন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান। 
বাড়িটি ফিরে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে ভুক্তভোগী মরিয়ম বেগম জানান, ১০ মাস পরে নিজ বাড়িতে ফেরার যে অনুভূতি তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। তবে আমার সাজানো সংসার ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। ঘরের ভেতরে থাকা টিভি ফ্রিজ আলমারি শোকেস সব ভেঙ্গে লন্ডভন্ড করে ফেলা হয়েছে। আলমারিতে থাকা আমার স্বর্ণালংকার ও  বাড়ির দলিলের কাগজপত্র সব লুট করে নিয়ে গেছে। ৯৯৯ এর সহযোগিতায় বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর প্রায় ১২ ঘণ্টা আমাকে ইকুরিয়া ফাঁড়িতে বসিয়ে রাখা হয়েছিল। আমার কোন অভিযোগ নেওয়া হয়নি। দশ মাস আমি আত্মীয়-স্বজনের বাসায় থেকে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে কোনো বিচার পাইনি। 
মরিয়ম বেগমের স্বামী বাহাদুর জানান, ঘটনার দিন আমি ব্যবসায়িক কাজে ঢাকার বাইরে ছিলাম। পরে মোবাইল ফোনে জানতে পারি আমার স্ত্রী সন্তান বাড়িতে অবরুদ্ধ অবস্থায় আছে।সে সময় আমি বাসায় আসতে চাইলে আমার স্ত্রী নিষেধ করে এবং পুলিশের সাহায্য নিতে বলে।
এরপর আমি ৯৯৯ ফোন করে পুলিশ দিয়ে তাদের কে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করি। আজ দশ মাস পর বাসায় ফিরে দেখি বাড়িঘর সব লন্ডভন্ড, বাসার নিচে থাকা আমার একটি পালসার মোটরসাইকেল হাতুড়ি দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে এবং এর কিছু যন্ত্রাংশ খুলে নিয়ে গেছে।
এ বিষয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুব আলম বলেন, বাড়িটি দখলমুক্ত করে ভুক্তভোগী পরিবারটিকে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে ঘরের ভেতরের কোন জিনিসপত্র খোয়া গেছে কিনা এ বিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবার এখনো পর্যন্ত কোনো অভিযোগ করেনি। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 



সালাউদ্দিন/সাএ

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।