Bangal Press
ঢাকাTuesday , 13 February 2024
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. ক্যাম্পাস
  6. খেলাধুলা
  7. চাকরির খবর
  8. জাতীয়
  9. তথ্যপ্রযুক্তি
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. মতামত
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা জগৎ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মৃত্যুর আগে দু’জন খুনির নাম বলে গেলেন মুরাদ

ডেস্ক রিপোর্ট
February 13, 2024 1:16 pm
Link Copied!

যশোরের নোয়াপাড়ায় যুবলীগ নেতা মুরাদ হোসেনকে দুবৃত্তরা কুপিয়ে হ ত্যা করেছে। রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১ টায় অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া বেঙ্গল মিল গেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার ২৪ ঘণ্টা পরেও কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এছাড়া এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো মামলাও হয়নি। তবে নিহত মুরাদের বাবা সাহাবুল ইসলামের দাবি, মৃত্যুর আগে দুজন খুনির নাম বলে গেছেন তার ছেলে। 
মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষ্যাৎকারে তিনি এ দাবি করেন। সাহাবুল ইসলাম বলেন, ‘আমার বড় ছেলে মুরাদ হোসেনের সঙ্গে অতীতে রাজনীতি নিয়ে এলাকার দুজনের গ্যাঞ্জাম-ফ্যাসাদ ছিল। তারাই আমার ছেলেকে মেরেছে। মারা যাওয়ার আগে আমার ছেলে তাদের নাম বলে গেছে।’
সাহাবুল ইসলাম আরও বলেন, ‘বিগত দিনে ওই খুনিরা এলাকার কয়েকজনকে মারধর করেছে। একজন দীর্ঘদিন বাইরে ছিল। ওরা কোপাকুপি ও চাঁদাবাজি করে। মুরাদের বাবা আরও বলেন, ‘সবার সঙ্গে কথা বলে মামলা করতে দেরি হচ্ছে। তবে আজই মামলা করব।’
প্রসঙ্গত, গত রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাতে উপজেলার নওয়াপাড়া বাজার এলাকায় দুর্বৃত্তরা যুবলীগ নেতা মুরাদ হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে খুলনায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে রাত সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মুরাদ নওয়াপাড়া পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।
পুলিশ জানায়, রাতে নওয়াপাড়া বাজার থেকে তরফদার পাড়ার বাড়ির দিকে হেঁটে যাচ্ছিলেন মুরাদ। পথে কবরস্থানের কাছে তার ওপর হামলা করা হয়। অস্ত্রের আঘাতে তিনি জখম হন। মুরাদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আকিকুল ইসলাম বলেন, মুরাদ হোসেনের সঙ্গে এলাকার একটি পক্ষের দ্বন্দ্ব ছিল। এই দ্বন্দ্বের কারণে দুই পক্ষের মধ্যে একাধিকবার মারামারির ঘটনা ঘটেছে। পূর্বশত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষ পরিকল্পিতভাবে মুরাদ হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ঘটনার পর মুরাদ হোসেন দুই ঘণ্টার মতো বেঁচে ছিলেন। এই সময় তিনি হত্যায় জড়িত কয়েকজনের নাম বলে গেছেন। আমরা ইতিমধ্যে কয়েকজনকে শনাক্ত করেছি। তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান চলছে।.
ওসি আরও বলেন, মুরাদের পরিবারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত এজাহার পাওয়া যায়নি। লিখিত এজাহার পেলে এ ব্যাপারে মামলা রেকর্ড করা হবে।
এদিকে পুলিশ জানিয়েছে, নিহত মুরাদ হোসেনের বিরুদ্ধে অভয়নগর থানায় ধর্ষণ, মাদক, অপহরণ, নাশকতা ও মারামারির ৯টি মামলা রয়েছে।



রার/সা.এ

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।