Bangal Press
ঢাকাMonday , 4 March 2024
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. ক্যাম্পাস
  6. খেলাধুলা
  7. চাকরির খবর
  8. জাতীয়
  9. তথ্যপ্রযুক্তি
  10. বিনোদন
  11. ভ্রমণ
  12. মতামত
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা জগৎ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে মিয়ানমারে পাচার করেন তারা

Link Copied!

কক্সবাজার সদর থেকে অপহৃত মাদ্রাসা শিক্ষার্থী রাশিকুল ইসলাম (১৫) কে ফিরে পেতে সংঘবদ্ধ চক্রকে মুক্তিপণ হিসেবে দেড় লাখ টাকা দেয়াড় পরও ফেরত পেলেন না একজন মা। উলটো জানাতে পেরেছেন মুক্তিপণের টাকা নেয়ার আগেই এই শিক্ষার্থীকে পাচার করা হয়েছে সংঘবদ্ধ চক্রের মিয়ানমারের সিন্ডিকেট। বর্তমানে এই কিশোর মিয়ানমারেই জিম্মি রয়েছে। এ ঘটনায় র‌্যাব-১৫ এর অভিযানে আটক সংঘবদ্ধ চক্রের ২ রোহিঙ্গা সহ ৩ জন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য জানিয়েছে।
র‌্যাব ১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (আইন ও গণমাধ্যম) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু সালাম চৌধুরি এমন বিষয় নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানিয়েছেন, শনিবার রাতে উখিয়া উপজেলার থাইংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে এই ৩ জনকে আটক করা হয়।
আটকরা হলেন, উখিয়ার ১২ নম্বর ক্যাম্পের আলী হোসেনের ছেলে আবদুল্লাহ (৩৪), একই ক্যাম্পের মৃত আবুল খায়েরের ছেলে আমিন উল্লাহ (১৯) ও কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের মুহুরি পাড়ার নুর মোহাম্মদের ছেলে মো. তারেক (১৮)।
গত ৫ ফেব্রুয়ারি চকরিয়া ফাঁসিয়াখালি দারুল উলুম মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রাশিকুল ইসলাম নিখোঁজ হন উল্লেখ করে র‌্যাব ১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (আইন ও গণমাধ্যম) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু সালাম চৌধুরি জানান, সম্প্রতি নিখোঁজ শিক্ষার্থীর মা কক্সবাজার সদরের নাছিমা ইয়াসমিন একটি অভিযোগ করেন।
যেখানে বলা হয়েছে, চকরিয়া ফাঁসিয়াখালি দারুল উলুম মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণীতে পড়ুয়া তার বড় ছেলে রাশিকুল ইসলাম মাদ্রাসা থেকে ছুটিতে বাড়ি আসে গত ৫ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন বিকালে তার ছেলে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে ছেলেকে নিকটতম আত্মীয় স্বজন ও সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুজি করেও কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি। 
পরবর্তীতে গত ৭ ফেব্রুয়ারি অপরিচিত মোবাইল নম্বর থেকে কল দিয়ে জানায় যে, রাশিকুল ইসলামকে অপহরণ করা হয়েছে। মুক্তিপণ হিসেবে দুই লক্ষ টাকা না দিলে তাকে মেরে ফেলার হবে। এরপর একাধিক মোবাইল নম্বরে অপহরণকারীদের পর্যায়ক্রমে একাধিকবারে দেড় লাখ টাকা মুক্তিপণ দেয়া হয়। এরপর পুনরায় আরও দুই লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে চক্রটি। এব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়েছে। যার নং ৭৬১, তাং ১০/০২/২০২৪।
অভিযোগটি র‌্যাব পাওয়ার পরপরই নানাভাবে কাজ শুরু করে জানিয়ে র‌্যাব কর্মকর্তা জানান, প্রযুক্তি সহ নানা সহযোগিতায় শনিবার রাতে এই ৩ জনকে আটক করা হয়। এসময় অপহরণ কাজে ব্যবহৃত ১টি স্মার্ট ফোন, ১টি বাটন ফোন ও ১টি রবি সীম কার্ড উদ্ধার করা হয়। আটকরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাবকে জানিয়েছে মো. তারেক কৌশলে রাশিকুল ইসলামকে ঘুরতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে থাইংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়ে যায়। ওখান থেকে পরিকল্পনা মোতাবেক একটি সিএনজি যোগে টেকনাফে নিয়ে গিয়ে সংঘবদ্ধ অপহরণ চক্রটির অপর এক সদস্যের নিকট হস্তান্তর করে। ওই ৫ ফেব্রুয়ারি রাতেই এই শিক্ষার্থীকে মিয়ানমারে পাচার করে দেয়া হয়। ওই অপহৃত শিক্ষার্থী এখন মিয়ানমারের জিম্মি।
এব্যাপারে মা বাদি হয়ে মামলা দায়ের করে আটক ৩ জনকে কক্সবাজার সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।



সালাউদ্দিন/সাএ

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।